১০ রানেই বাংলাদেশের ৫ উইকেট

679

ক্রীড়া ডেস্ক:
ভারতীয় বোলারদের ছবক যেন নিতেই পারেননি বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। উমেশ, ইশান্ত, শামি, অশ্বিনদের বল পড়তে পারেনি মুমিনুল-মুশফিক-মাহমুদউল্লাহরা। রীতিমতো খাবি খায় টাইগাররা। বলা বাহুল্য, ভারতীয় বোলারদের বলে বিভ্রান্ত হয়ে একের পর একজন সাজঘরের পথ ধরেন। এতে শেষ পর্যন্ত প্রথম ইনিংসে ১৫০ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ শিবিরে প্রথম ধ্বস নামে দলীয় ১২ রানের মাথায়। স্কোর বোর্ডে নতুন করে রান যুক্ত করার আগেই বিদায় নেন দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস ও সাদমান ইসলাম। চতুর্থ উইকেটের জুটি কিছুটা স্বপ্ন দেখালেও অধিনায়ক মুমিনুল ও মাহমুদউল্লার বিদায়ে ফের বিপর্যয়ে পড়ে টাইগাররা।

তবে দলের সবচেয়ে বড় ধস নামে দলীয় ১৪০ রান থেকে ১৫০ রানের মধ্যে। এই ১০ রানের মধ্যে পাঁচ উইকেট হারায় ডোমিঙ্গোর শিষ্যরা। ১৪০ রানে সেট হওয়া ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীমের (৪৩) বিদায়ের পর স্কোর বোর্ডে নতুন কোনো রান যুক্ত করার আগেই সাজ ঘরে ফিরেন মেহেদী মিরাজ (০) ও লিটন দাস (১০)।

নবম উইকেট জুটিতে আরও ৮ রান যুক্ত হয় বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসের খাতায়। তারপরই প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন তাইজুল ইসলাম (১)। এরপর আরও ২ রান যুক্ত হতেই শেষ উইকেটে এবাদত হোসেন (২) ফিরেন সাজঘরে। এই ১০ রানের মাথায় পাঁচ উইকেট খোয়ায় টাইগাররা।

বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ স্কোরটি আসে মুশফিকের ব্যাট থেকে। ১০৫ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৪৩ রানের ইনিংস খেলেন মুশফিক।

দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথমটিতে বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) ইন্দোরে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। এ নিয়ে নতুন অধ্যায় শুরু করেন তিনি। ক্যারিয়ারে প্রথম এবং ১১তম অধিনায়ক হিসেবে পথচলা শুরু করেন এ টপঅর্ডার। সেই সঙ্গে এ দিয়ে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু করে বাংলাদেশ।