পরিবেশ অধিদপ্তরে অভিজ্ঞতা বিনিময় বিষয়ক কর্মশালা

1091
smart

হাকালুকি হাওরের রিও কনভেনশনসমূহ বাস্তবায়নের মাধ্যমে প্রতিবেশগত উন্নয়নের লক্ষ্যে জিইএফ ও ইউএনডিপির সহায়তায় পরিবেশ অধিদপ্তর একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। মাঠ পর্যায়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে নেচার কনসারভেশন ম্যানেজমেন্ট (নেকম)। সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের যুধিষ্টিপুর এবং বাদেদেউলি গ্রাম এবং তৎসংলগ্ন হাওর এলাকায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হয়। প্রকল্প থেকে অর্জিত বিভিন্ন অভিজ্ঞতা বিনিময়ে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। পরিবেশ অধিদপ্তরের চামেলী সভাকক্ষে ১৩ মে অনুষ্ঠিত হয়েছে এ কর্মশালা।

কর্মশালা থেকে জানা যায়, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত এবং মানব সৃষ্ট বিভিন্ন কারণে হাকালুকি হাওর আজ ঝুঁকির মুখে। হাওর অঞ্চলের প্রতিবেশগত উপাদানের গুনমান প্রতিনিয়ত ক্ষয়প্রাপ্ত হচ্ছে। এই অঞ্চলের বেশিরভাগ অধিবাসীরাই তাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য প্রত্যক্ষভাবে এই হাওরের উপর নির্ভরশীল। ফলে মানুষের চাহিদা পূরণের জন্য হাওরের প্রাকৃতিক সম্পদ আজ নিঃস্বপ্রায়।

smart
smart

হাওর রক্ষায় স্থানীয় জনগনের ক্ষমতায়ন ও জীবিকায়নের মাধ্যমে হাওরের প্রতিবেশ সংরক্ষণে স্থানীয়দের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য বলে জানা যায়। তাদের দক্ষতা এবং সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি এই প্রকল্পের মাধ্যমে হাকালুকি হাওর অঞ্চলে নতুন করে প্রায় সাড়ে ৬ হাজার বিভিন্ন জাতের গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। স্থাপন করা হয়েছে ৫ হাজার চারা উৎপাদন সক্ষমতা সম্পন্ন নার্সারী।

পরিবেশ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ, বন এবং জলবায়ূ পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. এস এম মনজুরুল হান্নান খান। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রকল্প পরিচালক মো. জিয়াউল হক।

কর্মশালায় পরিবেশ অধিপ্তরের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা, গিলাছড়া ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. বোরহানুদ্দিন সিন্ধু, যুধিষ্টিপুর-বাদেদেউলি ভিসিজির সভাপতি ও সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন। কর্মশালায় প্রকল্পের বিভিন্ন সফলতা এবং অভিজ্ঞতা তুলে ধরা হয় এবং অঙ্গশগ্রহনকারীরা বিভিন্ন দিকের উপরে আলকপাত এবং আলোচনা করেন। কর্মশালায় বক্তারা হাওর রক্ষায় করনীয় বিভিন্ন বিষয়ের উপর আলোচনা করেনএবং এই প্রকল্পের অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যতে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।