ভারতে টাইগারদের জন্য আরও এক বিপদ

753

স্পোর্টস ডেস্কঃ
ভারত সফরের আগে সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞা টাইগারদের জন্য বয়ে আনে সবচেয়ে বড় দুঃসংবাদ। আইসিসির নিষেধাজ্ঞায় পড়ে আগামী এক বছর দেশের জার্সিতে খেলতে পারবেন না তিনি। ওপেনার তামিম ইকবালও নেই ভারত সফরে। ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে ছুটিতে আছেন বাঁহাতি ওপেনার।

সমস্যা এখানেই শেষ তা নয়। প্রথমতো বাংলাদেশকে দুই অভিজ্ঞ তারকা ছাড়া খেলতে হচ্ছে। দ্বিতীয়তো, প্রথম টি-টুয়েন্টি ম্যাচে বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব রয়েছে। এরপর আবার টেস্টে পরীক্ষা হবে গোলাপি বল দিয়ে। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট ইডেন গার্ডেন্সে অনুষ্ঠিত হবে ২২ নভেম্বর। এ ম্যাচটি গোলাপি বলে ফ্লাডলাইটের আলোতে হবে। গোলাপি বলও আবার যদি নিম্নমানের হয় তবে মুশফিকদের কেমন লাগবে? দুঃখজনক হলেও সত্য কলকাতা টেস্টের জন্য যে বল কেনা হয়েছে তা নিম্নমানের।

এ ম্যাচের জন্য ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) গোলাপি বল সরবরাহের অর্ডার দিয়েছে ভারতীয় ক্রীড়া সামগ্রী প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এসজির (স্যানস্পারেইলস গ্রিনল্যান্ডস) কাছে।

ডে-নাইট টেস্টে এসজির বল কতটা কার্যকরী তা নিয়ে দেখা দিয়েছে সন্দেহ। কারণ দিবা-রাত্রির ম্যাচে আগে কখনো এ কোম্পানির বলই ব্যবহার হয়নি। ভারতে এর আগে দুলীপ ট্রফিতে যে গোলাপি বলে খেলা হয়েছে তা অস্ট্রেলিয়ার কুকাবুরা কোম্পানির তৈরি।

কুকাবুরা বা ইংল্যান্ডের ডিউক বলের চেয়ে এসজির বলের মান অনেক খারাপ। ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলিও এ বলের মান নিয়ে সমালোচনা করেছেন। তার অভিযোগ, এসজির বল দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়।এসজি অবশ্য জানিয়েছে, তাদের বলের মান আগের চেয়ে এখন অনেক ভালো। সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে হোম টেস্ট সিরিজ ভারত খেলেছে এ কোম্পানির বল দিয়েই। কিন্তু সিরিজের সব খেলা হয়েছে লাল বলে। তাই গোলাপি বলের মান নিয়ে সংশয় দূর হচ্ছে না।

সাধারণত লাল বলের চেয়ে গোলাপি বলের পলিশ উঠে যায় দ্রুত। ধুলাবালিও লাগে বেশি। তারপরও নেওয়া হচ্ছে নিম্নমানের বল। বিসিসিআইয়ের নতুন প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলির অর্ডার পেয়ে খুব দ্রুতই ছয় ডজন গোলাপি বল এসজি পাঠিয়ে দিচ্ছে ইডেন গার্ডেন্সে। বাংলাদেশ-ভারত দুই দলের সামনে প্রথম ডে-নাইট টেস্টের পরীক্ষা যেমন দিতে হবে, তেমনি পরীক্ষা চলবে এসজির গোলাপি বলের কার্যকারিতা নিয়েও।