প্রথম রোজা পালিত: ইফতার কেনাকাটায় ছিল ধুম

1518
চকবাজারে ইফতার আয়োজন। দেখছেন ঢাকা সিটি করপোরেশন দক্ষিণ মেয়র সাঈদ খোকন: ছবি: নাসিরুল ইসলাম, বাংলা ট্রিবিউন

আবরাম মাহফুজ, নিজস্ব প্রতিবেদক

ইসলামের অন্যতম ফরজ পবিত্র রমজানুল মোবারকের প্রখম দিন অতিবাহিত হল ধর্মীয় আবেগ ও ভাবগাম্ভীর্য আনন্দের মধ্য দিয়ে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ছয়টা ৩৭ মিনিটে রাজধানী ও আশেপাশের এলাকায় ইফতারের সময় ছিল। এর আগে রমজানের প্রথম দিনেই জমে উঠে ঢাকার ইফতারের বাজার। প্রধান সড়ক থেকে শুরু করে মহল্লার গলি পথেও ইফতারির ঐতিহ্যবাহী খাবার নিয়ে বসে গেছেন দোকানিরা। রাজধানীর বেইলী রোড, চকবাজার, নয়াপল্টন, আজিমপুর, হাতিরপুর, রামপুরা, মুহাম্মদপুর, বাড্ডা, গুলশান, পল্টন, বায়তুল মোকাররম, ধানমণ্ডিসহ বিভিন্ন স্থানে পমরা সাজিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে ইফতার। আর ক্রেতাদের চাহিদার কথা মাথায় রেখেই দোকানগুলোয় ইফতার তৈরি করা হয়েছে।
বেইলী রোড, চকবাজার ও হাতিরপুর এলাকায় নবাবী ঘিয়ে ভাজা বোম্বে জিলাপী, রেশমী জিলাপী, নবাবী স্পেশাল ফির্নি, নবাবী ক্ষিরসা, ফালুদা, নবাবী টানা পরোটা, কাশ্মিরী নবাবী পরোটা, চিকেন রেশমী কাবাবসহ চকবাজারের ‘বড় বাপের পোলাই খায়’ বেশ জনপ্রিয় ইফতারি।
বায়তুল মোকাররম এলাকায় ইফতার ক্রেতা ব্যবসায়ী মাহফুজ মান্নান এখনকে বলেন, ‘আজকে রহমতের প্রথম দিন। আর এইদিনে পরিবারের সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে ইফতার করবো। যার জন্য রেশমী জিলাপী, নবাবী স্পেশাল ফির্নি, নবাবী ক্ষিরসা ফালুদা, কাশ্মিরী নবাবী পরোটা কিনলাম।’5
চকবাজারের ইফতারি ঐতিহ্যগতভাবেই বিখ্যাত। কিন্তু সেখানে পরিবার নিয়ে ইফতার করতে গেলে অনেক যানজটের মধ্যে পড়তে হয়। তাই ৫-৭ রোজায় সেখান থেকে ইফতার কিনবো।
ধানমণ্ডি, পলাশী ও আজিমপুর এলাকায় বিভিন্ন ধরনের ইফতার সাজিয়ে দোকানিরা মেতে উঠেছেন। ধানমণ্ডির এক ইফতার বিক্রেতা জানান, ‘প্রথম দিনই বৃষ্টি হলো, আর যদি ঝড়ো-বৃষ্টি না হয়, তাহলে ধানমণ্ডি এলাকায় মাসজুড়ে কম করে হলেও পাঁচ কোটি টাকার বেচা-কেনা হবে।’

4

তিনি জানান, আমরা যত রকমের ইফতারের আইটেম তুলে এনেছি, তাতে সাধারণ ক্রেতাসহ সবারই দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারবো। যেমন- আমাদের কাছে বিশেষভাবে পাবেন মাটন লেগ রোস্ট, স্পেশাল গরুর তেহারি, স্পেশাল ফালুদা, নবাবী বোরহানীসহ বহু পদের খাবার।

রাজধানীজুড়ে দেখা গেছে, বৃষ্টি ও তীব্র যানজটের মধ্যেও উপচে পড়ছে ক্রেতাদের ভিড়। রোজার প্রথম ইফাতারি অনেকেই পরিবারের সঙ্গে করতে চান আর তাই বৃষ্টি-যানজট উপেক্ষা করে কেনাকাটার ধুমও বেশি।

এএম/এখন